মেহেরপুরে বাণিজ্যিকভাবে থাই পেয়ারা চাষ



মেহেরপুরের বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে থাই পেয়ারার বাগান। আবহাওয়া ভালো থাকায় এবার বাগানগুলোতে ফল এসেছে ভালো। এ বছর অর্ধ কোটি টাকার পেয়ারা বিক্রি করার আশা করছেন চাষীরা।

মুজিবনগর সমন্বিত কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বাণ্যিজিক ভিত্তিতে থাই জাতের পেয়ারার বাগান করেছে মেহেরপুর সদরের চাষীরা।বাগানে চাহিদা থাকায় বিঘা প্রতি এক লক্ষ থেকে এক লক্ষ বিশ হাজার টাকার পেয়ারা বিক্রির আশা তাদের।

পেয়ারা চাষীরা জানায়, ২৪ বিঘায় পেয়ারা চাষ করতে তার খরচ হয়েছে বছরে ২২ লক্ষ টাকা। ছয় সাত লক্ষ টাকা এখন পর্যন্ত বেচা কেনা করেছি, লক্ষ্য রয়েছে ৫০ লক্ষ টাকার বেনাকেনা করা।



পেয়ারা বাগানের ভেতর সমন্বিতভাবে অন্য ফসল আবাদ করাই বেশি লাভবান হচ্ছেন চাষী।চাষীরা বলছেন, প্রথম বছরে পেয়ারা চাষের সঙ্গে পেঁয়াজ ও লাল শাক আবাদ করেছে, এবং খরচের টাকা তারা তুলে নিয়েছে।

বিষমুক্ত পদ্ধতি অবলম্বনে মাঠ পর্যায়ে পরামর্শ দিচ্ছে স্থানীয় কৃষি বিভাগ।উপ সহকারি কর্মকর্তা আশরাফুল আলম বলেন, ফলের পোকা ও অতিরিক্ত কীটনাশক রোধে আমরা ফলের উপর পলিথিনের ব্যবস্থা করে দিয়েছি।

ফলে আমরা নিরাপদ ফল খেতে পারব এমনটাই নির্দেশনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর দিয়ে যাচ্ছে।বাজারে প্রতি কেজি থাই পেয়ারা বিত্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকায়।



মুজিবনগর সমন্বিত কৃষি প্রকল্পের আওতায়, গত কয়েক বছর ধরে চাষিরা বাণিজ্যিকভাবে থাই পেয়ারার চাষ করে আসছেন। বিঘা প্রতি ৬০ হাজার টাকা খরচ কোরে, এক থেকে দেড় লাখ টাকা লাভ করছেন তারা।

মেহেরপুরের চাহিদা মিটিয়ে, অন্য জেলাতেও এই পেয়ারা বাজারজাত হচ্ছে। কৃষি বিভাগ জানায়, চলতি বছর জেলার ২৫০ বিঘা জমিতে থাই পেয়ারার আবাদ হয়েছে।

তথ্য সূত্র - চ্যানেল আই অনলাইন



Share this:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

 
Copyright © মেহেরপুর ২৪. Designed by OddThemes