মেহেরপুরের নুর নাহার বিনামূল্যে হাসপাতালের রোগীদের সেহরি খাওয়ান

মেহেরপুর শহরের ওয়াপদাপাড়ার বাসিন্দা নুর নাহার বেগম। দুই বছর ধরে রমজান মাস এলেই মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের রোগী এবং রোগীর স্বজনদের মাঝে বিনামূল্যে তিনি সেহরি বিতরণ করেন।



নুর নাহারের এ উদ্যোগকে স্থানীয় কয়েকজন নানাভাবে সহযোগিতা করে থাকেন। তার এমন উদ্যোগ মেহেরপুর মানুষের নজর কেড়েছে।নুর নাহার জানান, তিন বছর আগে তিনি সন্তানহারা হন। সন্তানের জন্য দোয়া নিতে তিনি বেছে নেন হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের মধ্যে সেহরি খাওয়ানোর উদ্যোগ। দুই বছর ধরে তিনি এ কাজ করছেন। রমজান মাস এলেই তিনি প্রতিদিন গভীর রাতে খাবার নিয়ে ২৫০ শয্যার মেহেরপুরের জেনারেল হাসপাতালে ছুটে যান।
সেহরি খেতে তিনি বিভিন্ন ওয়ার্ডে গিয়ে রোগীদের ঘুম থেকে ডেকে তোলেন। এর পর নিজের হাতে কোনো দিন সাদা ভাতের সঙ্গে ডাল, ডিম, সবজি; কোনো দিন মাছ কিংবা মাংস দিয়ে সব রোগী এবং রোগীর স্বজনদের মাঝে সেহরির খাবার বিতরণ করেন।



সন্তান হারানোর কষ্ট ঘোচাতে তিনি আমৃত্যু এমন বিরল ও দৃষ্টান্তমূলক কাজ করে যাবেন বলে জানান।নুর নাহার বলেন, আমার ছেলে মারা যাওয়ার পর গত বছর থেকে আমি নিজ উদ্যোগে হাসপাতালে থাকা রোগী এবং রোগীর স্বজনদের পুরো রমজান ভোররাতে সেহরি খাওয়ানো শুরু করি। আমি যতদিন বাঁচব এই কাজটি চালিয়ে যাব।
শুধু আমার ছেলের দোয়ার জন্য।রোগীরা জানান, প্রতিদিন বাড়ি থেকে খাবার রান্না করে এনে নুর নাহার সেহরি খাওয়ান। তাই হাসপাতালের খাবার না খেয়ে রোগীরা নুর নাহারের বাড়ির রান্না করা মানসম্মত খাবার খেতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।রোগীর স্বজনরা জানান, রমজান মাসে আমরা নুর নাহারের দেওয়া সেহরি খেয়ে রোজা রাখছি। ভোররাতে তার খাবার পেয়ে আমরা অনেক খুশি। অনেক দূর থেকে রোগীরা আসায় ভোররাতে খাবার পাওয়া যায় না। কিন্তু নুর নাহার আমাদের ডেকে সেহরির খাবার দেন।সাইফুল ইসলাম নামে একজন স্থানীয় ব্যক্তি জানান, ভোররাতে রোগীর স্বজনদের মাঝে নুর নাহারের সঙ্গে তিনি খাবার বিতরণ করে থাকেন। গত ২বছর থেকে ভাত, মাছ, মাংস ও ডিম দিয়ে এই সেহরি বিনামূল্যে খাওয়ানো হয়।

Share this:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

 
Copyright © মেহেরপুর ২৪. Designed by OddThemes